চুয়াডাঙ্গায় ঢিলেঢালা হরতাল পালন, আ.লীগের দখলে রাজপথ


আজকের চুয়াডাঙ্গা ➤ নিজস্ব প্রতিবেদক প্রকাশের সময় : অক্টোবর ২৯, ২০২৩, ১১:৫৭ অপরাহ্ণ
চুয়াডাঙ্গায় ঢিলেঢালা হরতাল পালন, আ.লীগের দখলে রাজপথ
হরতালে চুয়াডাঙ্গা শহরের প্রাণকেন্দ্র বড়বাজারের দৃশ্য

চুয়াডাঙ্গায় কোনো প্রকার অপ্রীতিকর ঘটনা ছাড়াই শান্তিপূর্ণ অবস্থায় ঢিলেঢালা হরতাল পালিত হয়েছে। পুলিশের তৎপরতায় চুয়াডাঙ্গায় বিএনপি-জামায়াতের কর্মীরা মাঠে না থাকলেও পুরো শহর আওয়ামী লীগ ও সহযোগী সংগঠনের নেতা-কর্মীরা দখলে রেখেছিলেন। জেলার কোনো জায়গা থেকে পিকেটিং বা ভাঙচুরের খবর পাওয়া যায়নি। চুয়াডাঙ্গার একটি মাত্র রুট বাদে দূরপাল্লা ও লোকাল বাস চলাচল সকাল-সন্ধ্যা বন্ধ থাকায় দুর্ভোগে পড়েন যাত্রী সাধারণেরা। জেলা শহরের বেশিরভাগ দোকানপাট খোলা থাকলেও বন্ধ দেখা গেছে হাইরোডের সাথে থাকা বেশ কিছু দোকানপাট। ঘোষণা আসার পর থেকেই হরতাল নিয়ে সাধারণ মানুষের মধ্যে একটা ভাবনা কাজ করছিল।

রোববার (২৯ অক্টোবর) সরেজমিনে দেখা গেছে, শহরের প্রধান প্রধান সড়কের ধারে বেশকিছু দোকানপাট বন্ধ। আবার কেউ কেউ খুলেছেন ব্যবসা প্রতিষ্ঠান। খুব ভোরে দূরপাল্লার বাসগুলো ছেড়ে যায়। তবে সারাদিনে চুয়াডাঙ্গা থেকে হাসাদাহ এই একটি মাত্র রুটেই আঞ্চলিক বাস চলাচল করেছে। বাকি রুটগুলোতে বাস বন্ধ থাকায় বিপাকে পড়েন সাধারণ মানুষ। ইজিবাইক ও পাখিভ্যানসহ শহরের যান চলাচল মোটামুটি স্বাভাবিক দেখা গেছে। চুয়াডাঙ্গা বড় বাজার অন্যান্য দিনের মতোই স্বাভাবিক ছিল। চুয়াডাঙ্গা শহরের পুরাতন হাসপাতাল রোড, কোর্ট রোড, বড় বাজার, কলেজ রোডসহ শহরের সবকটি সড়কেই অন্যান্য দিনের মতো মানুষের চলাচল ছিল স্বাভাবিক।

চুয়াডাঙ্গা শহরের বিভিন্ন স্থান ঘুরে দেখা গেছে, দিনব্যাপী হরতালে চুয়াডাঙ্গা শহরের কোথাও কোনো প্রকার সহিংসতার ঘটনা ঘটেনি। চুয়াডাঙ্গা কোর্ট মোড়, বড় বাজার, একাডেমি মোড়, রেল বাজার, সাহিত্য পরিষদ এলাকা, কলেজ রোডসহ শহরের সবকটি গুরুত্ব মোড়ে পুলিশ ও আনসারের অবস্থান। আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর পাশাপাশি জেলা শহরের বিভিন্ন মোড়ে মোড়ে আওয়ামী লীগসহ অঙ্গসহযোগী সংগঠনের নেতা-কর্মীদের অবস্থান করতে দেখা যায়। বিএনপি-জামায়াতের ডাকা সকাল-সন্ধ্যা হরতালের প্রতিবাদে জেলা আওয়ামী লীগ, স্বেচ্ছাসেবক লীগ, জেলা ছাত্রলীগসহ অঙ্গসহযোগী সংগঠন দিনব্যাপী প্রতিবাদ কর্মসূচি পালন করে।

সরেজমিনে চুয়াডাঙ্গা শহরে আরও দেখা যায়, বেলা ১১টার দিকে জেলা আওয়ামী স্বেচ্ছাসেবক লীগের সাবেক আহ্বায়ক ও সাবেক পৌর মেয়র ওবাইদুর রহমান চৌধুরী জিপুর নেতৃত্বে প্রতিবাদ মিছিল অনুষ্ঠিত হয়। মিছিলটি শহরের বিভিন্ন প্রধান প্রধান সড়ক প্রদিক্ষণ করে। এসময় শহরের বিভিন্ন পয়েন্টে বন্ধ থাকা দোকানপাট খুলে দিতে অনুরোধ জানান ওবাইদুর রহমান চৌধুরী জিপু। তাঁর অনুরোধে বেশ কিছু দোকানপাট খুলে দেন মালিকরা। বেলা তিনটায় জেলা আওয়ামী লীগের আয়োজনে বড় বাজার শহীদ হাসান চত্বরে এক শান্তি ও উন্নয়ন সভার আয়োজন করা হয়।

আওয়ামী স্বেচ্ছাসেবক লীগের হরতাল বিরোধী মিছিল

বিকেল চারটায় চুয়াডাঙ্গা কলেজ রোডে শান্তিপূর্ণ মহাসমাবেশের নামে বিএনপি-জামায়াত কর্তৃক ঢাকায় পুলিশ হত্যা, অগ্নিসংযোগ, সন্ত্রাস, নৈরাজ্য, প্রধান বিচারপতির বাসভবনে হামলা-ভাঙচুর, আগামী দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে ষড়যন্ত্র ও অপতৎপরতা বিরুদ্ধে শান্তি ও উন্নয়ন সমাবেশ করেন জেলা আওয়ামী লীগের সিনিয়র সহসভাপতি ও সদর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আসাদুল হক বিশ্বাস। এছাড়াও, দুপুর সাড়ে ১২টায় শান্তি ও উন্নয়ন সমাবেশ করেন কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগের শিল্প ও বাণিজ্য বিষয়ক সম্পাদক বাবু দিলীপ কুমার আগরওয়ালা।

আন্তঃজেলা পাঁচটি পথের মধ্যে চারটি পথেই পরিবহন মালিক-শ্রমিকেরা কোনো গাড়ি ছাড়েননি। চুয়াডাঙ্গা থেকে ঢাকা, চট্টগ্রাম, সিলেট, বরিশাল, ফরিদপুর, খুলনাসহ দূরপাল্লার পথে কোনো বাস ও পণ্যবাহী ট্রাক ছেড়ে যায়নি। সরকারি দপ্তরগুলো খুললেও সেখানে সেবাগ্রহীতাদের উপস্থিতি কম ছিল।

চুয়াডাঙ্গা জেলা সড়ক পরিবহন মালিক সমিতির সাধারণ সম্পাদক এ কে এম মঈনুদ্দিন মুক্তা বলেন, সম্ভাব্য ঝামেলার আশঙ্কায় পরিবহন শ্রমিকেরা গাড়ি চালাতে আগ্রহ দেখাননি। এ কারণে একটিমাত্র রুট বাদে সব রুটে বাস-ট্রাকসহ সড়ক পরিবহন বন্ধ রাখা হয়।

আজকের চুয়াডাঙ্গা এর সংবাদ সবার আগে পেতে Follow Or Like করুন আজকের চুয়াডাঙ্গা এর ফেইসবুক পেজ এ , আজকের চুয়াডাঙ্গা এর টুইটার এবং সাবস্ক্রাইব করুন আজকের চুয়াডাঙ্গা ইউটিউব চ্যানেলে