চুয়াডাঙ্গায় বইছে মৃদু শৈত্যপ্রবাহ, এক দিনে তাপমাত্রা কমল ৩ ডিগ্রি সেলসিয়াস


আজকের চুয়াডাঙ্গা ➤ নিজস্ব প্রতিবেদক প্রকাশের সময় : জানুয়ারি ১২, ২০২৪, ১১:৪১ পূর্বাহ্ণ
চুয়াডাঙ্গায় বইছে মৃদু শৈত্যপ্রবাহ, এক দিনে তাপমাত্রা কমল ৩ ডিগ্রি সেলসিয়াস

চুয়াডাঙ্গা শুরু হয়েছে মৃদু শৈত্যপ্রবাহ। হাড় কাপানো শীতে বিপর্যস্ত হয়ে পড়েছে এ জেলার মানুষের স্বাভাবিক জীবনযাত্রা। শুক্রবার (১২ জানুয়ারি) সকাল ৯টায় এ জেলার তাপমাত্রা রেকর্ড করা হয়েছে ৯ দশমিক ৬ ডিগ্রি সেলসিয়াস। যা সারা দেশের মধ্যে সর্বনিম্ন তাপমাত্রা। এদিকে, টান্ডা বাড়ার সাথে সাথে জেলার হাসপাতালগুলোতে বেড়েছে শীতজনিত রোগীর সংখ্যা। আর সকালের তীব্র শীত ও কুয়াশা ভেদ করে মাঠের কাজে যেতে হচ্ছে কৃষকদের। ফলে দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে সাধারণ কৃষকদের।

শুক্রবার জেলার বিভিন্ন এলাকা ঘুরে দেখা গেছে, ভোর থেকেই এলাকার বিভিন্ন মোড়ে মোড়ে ও চায়ের দোকানে শীত নিবারণের চেষ্টায় আগুন জ্বালিয়ে উত্তাপ নিতে দেখা গেছে নিম্ন আয়ের মানুষগুলোকে। দিন আনা দিন খাওয়া মানুষগুলো অলস সময় পার করছেন। সড়কেও খুব একটা মানুষের চলাচল দেখা যায়নি। খুব প্রয়োজন ছাড়া কেউ ঘর থেকে বের হচ্ছেন না। শীত নিবারণের আশায় গরম কাপড়ের দোকানে ভিড় করছেন অনেকে।

চুয়াডাঙ্গা প্রথম শ্রেণির আবহাওয়া পর্যবেক্ষণাগার সুত্রে জানা গেছে, চুয়াডাঙ্গায় মৃদু শৈত্যপ্রবাহ শুরু হয়েছে। শুক্রবার (১২ জানুয়ারি) সকাল ৯টায় চুয়াডাঙ্গা ও কিশোরগঞ্জের নিকলীতে ৯ দশমিক ৬ ডিগ্রি সেলসিয়াস তাপমাত্রা রেকর্ড করা হয়েছে। যা সারা দেশের সর্বনিম্ন তাপমাত্রা এটিই। চুয়াডাঙ্গায় সকাল ৬টায় বাতাসের আদ্রতা ছিল ১০০ শতাংশ এবং দৃষ্টিসীমা ছিল ৯০০ মিটার । সকাল ৯টায় ছিল বাতাসের আদ্রতা ছিল ৯৮ শতাংশ এবং দৃষ্টিসীমা ৫০০ মিটার।

এর আগে গত ১১ জানুয়ারি সকাল ৯টায় চুয়াডাঙ্গায় সর্বনিম্ন তাপমাত্রা রেকর্ড করা হয় ১৩ ডিগ্রি সেলসিয়াস। বাতাসের আর্দ্রতা ছিল ৯৬ শতাংশ। এক দিনের ব্যবধানে তাপমাত্রা কমল ৩ দশমিক ৪ ডিগ্রিতে।

এদিকে, ঘন কুয়াশার কারণে কৃষকদের বোরো ধানের বীজতলা ও আলুখেত রক্ষায় বিশেষভাবে সতর্কতা করেছে জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর। চুয়াডাঙ্গা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক সুভাস চন্দ্র সাহা জানান, ধানের বীজতলা রক্ষায় সকালে চারার ওপর থেকে শিশির সরিয়ে দেওয়া, সম্ভব হলে চারা রাতের বেলা ঢেকে দেওয়া, বীজতলায় সেচ দিয়ে পরদিন সকালে পানি বের করে দেওয়া এবং বীজতলা লাল হলে জিপসাম ও ইউরিয়া সার দেওয়ার পরামর্শ দেওয়া হচ্ছে।

চুয়াডাঙ্গা সদর হাসপাতালের আবাসিক মেডিকেল অফিসার (আরএমও) ডা. ওয়াহিদ মাহমুদ রবিন বলেন, গত সাত দিনে চুয়াডাঙ্গা সদর হাসপাতালে শিশুসহ প্রায় দুই হাজার রোগী ঠান্ডাজনিত কারণে আউটডোরে চিকিৎসা নিয়েছেন। এছাড়া রোটাভাইরাস জনিত কারণে রোগীর সংখ্যাও বাড়ছে। কাঁচা খেজুর রস না খাওয়ারও পরামর্শ দেন তিনি।

চুয়াডাঙ্গা প্রথম শ্রেণির আবহাওয়া পর্যবেক্ষণাগারের জ্যেষ্ঠ পর্যবেক্ষক মো. রকিবুল হাসান বলেন, আজ শুক্রবার সকাল ৯টায় চুয়াডাঙ্গা এবং কিশোরগঞ্জের নিকলীতে সর্বনিম্ন তাপমাত্রা রেকর্ড করা হয়েছে ৯ দশমিক ৬ ডিগ্রি সেলসিয়াস। যা সারা দেশের মধ্যে সর্বনিম্ন তাপমাত্রা।

তিনি আরও বলেন, দিনের ও রাতের তাপমাত্রা প্রায় একই হওয়ায় শীত বেশি অনুভূত হচ্ছে। সে সাথে ঘন কুয়াশা দেখা যাচ্ছে। আগামী সপ্তাহে শীতের তীব্রতা আরও বাড়তে পারে।

আজকের চুয়াডাঙ্গা এর সংবাদ সবার আগে পেতে Follow Or Like করুন আজকের চুয়াডাঙ্গা এর ফেইসবুক পেজ এ , আজকের চুয়াডাঙ্গা এর টুইটার এবং সাবস্ক্রাইব করুন আজকের চুয়াডাঙ্গা ইউটিউব চ্যানেলে