আলমডাঙ্গায় গৃহবধূকে হত্যার অভিযোগ, স্বামী আটক


আজকের চুয়াডাঙ্গা➤ আলমডাঙ্গা প্রতিবেদক প্রকাশের সময় : ডিসেম্বর ২৭, ২০২৩, ১:২৪ অপরাহ্ণ
আলমডাঙ্গায় গৃহবধূকে হত্যার অভিযোগ, স্বামী আটক

চুয়াডাঙ্গার আলমডাঙ্গায় খাদিজা খাতুন (২৮) নামের এক গৃহবধূর রহস্যজনক মৃত্যু হয়েছে। পরিবারের দাবি, তার স্বামী তাকে নির্যাতন করে হত্যা করে গলায় ফাঁস দিয়ে ঝুলিয়ে রেখেছে। এ ঘটনায় অভিযুক্ত স্বামী আলম হোসেনকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য আটক করেছে পুলিশ। বুধবার (২৭ ডিসেম্বর) ভোররাতে আলমডাঙ্গা শহরের কলেজপাড়ায় এ ঘটনা ঘটে।

নিহত গৃহবধূ খাদিজা খাতুন উপজেলার হারদী ইউনিয়নের কৃষি ক্লাব পাড়ার ভিকু মিয়ার মেয়ে। এবং অভিযুক্ত স্বামী আলম হোসেন (৩২) একই উপজেলার কালিদাসপুর ইউনিয়নের মোনাকষা গ্রামের আব্দুল আজিজের ছেলে।

এর আগে বুধবার সকালে খবর পেয়ে আলমডাঙ্গা থানার এক দল পুলিশ ঘটনাস্থলে উপস্থিত হয়ে লাশ উদ্ধার করে। এসময় ওই গৃহবধূর পিতার পরিবারের সদস্যদের সাথে পুলিশের ধস্তাধস্তির ঘটনা ঘটে। পরে আলমডাঙ্গা থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) শেখ গনি মিয়া অতিরিক্ত ফোর্স নিয়ে ঘটনাস্থলে গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনেন।

স্থানীয়রা জানান, এক বছর আগে প্রেম করে বিয়ে করেন খাদিজা ও আলম। এটা দুজনেরই তৃতীয় বিয়ে। বিয়ের পর খাদিজা তার স্বামীর সঙ্গে পৌর এলাকার কলেজপাড়া এলাকায় ভাড়া বাসায় থাকতেন। মঙ্গলবার দিবাগত রাতে খাদিজার স্বামী তাকে মারধর করে গলায় ফাঁস লাগিয়ে ঘরের জানালার গ্রিলে ঝুঁলিয়ে রাখে। বুধবার ভোরে প্রতিবেশীদের জানায় তার স্ত্রী গলায় ফাঁস লাগিয়ে আত্মহত্যা করেছে। তারপর তিনি নিজেই থানায় উপস্থিত হয়ে স্ত্রীর আত্মহত্যার ঘটনাটি পুলিশকে জানায়।

নিহত খাদিজার ভাই আব্দুস সামাদ অভিযোগ করে বলেন, এর আগেও আলম ও তার পরিবারের লোকজন যৌতুকের জন্য তার বোনকে নির্যাতন করেছিল। এমন ঘটনার পর গত দুই মাস ধরে আলমডাঙ্গা কলেজপাড়ায় একটি বাসা ভাড়া নিয়ে দুজনে বসবাস করত। এবার তার বোনকে গলায় ফাঁস লাগিয়ে মেরে ফেলা হয়েছে।

নিহতের মা আশুরা বেগম অভিযোগ করে বলেন, ‘আমার মেয়ে দুই মাসের অন্তঃসত্তা ছিল। প্রথম পক্ষের মেয়ের বয়স যখন পাঁচ মাস, তখন ডিভোর্স হয়। এক বছর আগে আলমের সঙ্গে বিবাহ হয় খাদিজার। বিয়ের পর থেকে ছোটখাটো বিষয়ে মেয়েকে মারধর করতো স্বামী আলম ও তার পরিবারের সদস্যরা। আজ রাতে তাকে হত্যা করে ঝুলিয়ে রেখেছে তারা। আমি সুষ্ঠু বিচার চাই।’

এ বিষয়ে আলমডাঙ্গা থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) শেখ গনি মিয়া বলেন, বুধবার সকালে আলম থানায় এসে আমাদেরকে জানায় তার স্ত্রী আত্মহত্যা করেছে। আমরা ঘটনাস্থলে পৌঁছে খাদিজার ঝুলন্ত মরদেহ উদ্ধার করি। প্রাথমিকভাবে ধারণা করা যাচ্ছে, তিনি আত্মহত্যা করেছেন। ময়নাতদন্তের পর জানা যাবে এটি হত্যা নাকি আত্মহত্যা।

আজকের চুয়াডাঙ্গা এর সংবাদ সবার আগে পেতে Follow Or Like করুন আজকের চুয়াডাঙ্গা এর ফেইসবুক পেজ এ , আজকের চুয়াডাঙ্গা এর টুইটার এবং সাবস্ক্রাইব করুন আজকের চুয়াডাঙ্গা ইউটিউব চ্যানেলে